,

এ যাবৎকালে বাংলাদেশের শোবিজ অঙ্গনে এক বছরে সবচেয়ে বেশি ডিভোর্সের ঘটনা !!

বিনোদন ডেস্ক : বাংলা সময় টোয়েন্টিফোর ডটকম :
আপন চৌধুরী,বিশেষ প্রতিনিধি:-সব অঙ্গনের মতো শোবিজেও ডিভোর্সের ঘটনা মাঝে-মধ্যেই ঘটে থাকে। কিন্তু এ যাবৎকালে বাংলাদেশের শোবিজে ২০১৭ সালে সবচেয়ে বেশি ডিভোর্সের ঘটনা ঘটেছে। সেসব নিয়েই এ আয়োজন।

গত বছরের শেষভাগে শাকিব খান অপু বিশ্বাসকে ডিভোর্স লেটার পাঠান। এতে হতবাক হয়ে যান অপু। দীর্ঘদিনের সহশিল্পী শাকিবকে অপু বিয়ে করেন নিজ ধর্মের বাইরে এসে। এরপরেও যখন ডিভোর্স লেটার হাতে আসে তখন স্বাভাবিকভাবেই বিস্মিত হতে হয়। গত বছরের শেষভাগে বিষয়টি ছিল আলোচনার তুঙ্গে।

হাবিব-রেহান

মডেল-অভিনেত্রী তানজীন তিশার সঙ্গে হাবিবের সম্পর্কে জের ধরেই হাবিব রেহানের বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটেছে।

রেহান সরাসরি অভিযোগ করেন, হাবিব ও তিশার সম্পর্কের কারণেই মূলত তার সংসার ভেঙেছে। পরে হাবিবের সঙ্গে তিশার সম্পর্কের বিয়ষটি প্রমাণিত হওয়ার পর হাবিব-রেহানের এই বিচ্ছেদের ঘটনাটি নাড়া দিয়ে গেছে সবাইকে।

তাহসান-মিথিলা

সবাইকে অবাক করে দিয়ে ২০১৭ তে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে তাহসান ও মিথিলার। গত কয়েক বছরের মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত বিচ্ছেদের খবর হলো এই তারকা দম্পতির। সুখী এই দম্পতি ১১টি বছর পার করেছিলেন একসঙ্গে। আয়রা নামের একটি কন্যাসন্তানও রয়েছে তাদের। কিন্তু বনিবনা না হওয়ায় তাহসান ও মিথিলা দুজনই তাদের ডিভোর্সের বিষয়টি মিডিয়াকে জানান। তাহসান ও মিথিলা ভক্তরা তাদের বিচ্ছেদের খবরটি একেবারেই মেনে নিতে পারেননি। এমনকি ফেসবুকে তাদের ভক্তরা গ্রুপ খোলেন ‘তাহসান-মিথিলার ডিভোর্স চাই না’ শিরোনামে।

স্পর্শিয়া-রাফসান

একই বছর সংসার ভেঙেছে মডেল-অভিনেত্রী অর্চিতা স্পর্শিয়ার। নির্মাতা রাফসান আহমেদের সঙ্গে প্রেম করে দু’বছর আগে বিয়ে করেন স্পর্শিয়া।

শখ-নিলয়

দাম্পত্য জীবনে কলহের জের ধরে বিবাহ বিচ্ছেদ হলো শখ ও নিলয়ের। ২০১৬ সালে বিয়ের পর পর শখ তার ‘রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস’ পরিবর্তন করে ‘ম্যারিড টু নিলয় আলমগীর’ করেছিলেন। বিয়ের পর বেশিদিন এই সম্পর্ক টিকেনি। গত বছর শখ নিলয়ের বিবাহ বিচ্ছেদ হয়।

নোভা-রায়হান

২০১৭ সালে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে অভিনেত্রী নোভার। অভিনেত্রী, মডেল উপস্থাপিকা নোভা পরিচালক, চিত্রগ্রাহক ও নাট্যকার রায়হান খানকে ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন। কিন্তু তাদের সম্পর্কটাও ভেঙে যায়। উভয়ই ঢাকা জজকোর্ট কাজি অফিসে গিয়ে তালাকনামায় স্বাক্ষর করে আসেন। তাদের উভয়ের পক্ষ থেকে বিচ্ছেদের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয় গত বছরই।

রন্টি দাস-আবেদ

ক্লোজআপ খ্যাত রন্টি দাস ২০১১ সালের আগস্ট মাসে ব্যবসায়ী গোলাম মোহাম্মদ আবেদের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের ঘরে আরশি নামের এক কন্যাসন্তান রয়েছে। গত বছরের শেষভাগে এসে জানা যায় রন্টি দাস বিয়ে করছেন সাঈদ রহমানকে। অর্থাৎ গত বছরের কোনো এক সময়ে তার ডিভোর্স হয় আবেদের সঙ্গে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা