,

কুষ্টিয়ায় ভেড়ামারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে আসিফ হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী আটক !!

সারা বাংলা ডেস্ক : বাংলা সময় টোয়েন্টিফোর ডটকম;
স্টাফ রিপোর্টার:-কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূর-ই-আলম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে আলোচিত ২ অপহরণ ঘটনার সফলভাবে রহস্য উদঘাটন।

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার স্কুল ছাত্র আসিফ ও মিরপুর উপজেলার সেই শিশু দেবদত্ত। অপহরণের পর হত্যা করা হয় তাদেরকে। পৃথক ২ ঘটনার রহস্য উদঘাটনে মাঠে নামে ভেড়ামারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূর-ই-আলম সিদ্দকীর নেতৃত্বে অভিযান টিম। মুঠোফোনে চাঁদা দাবির পরেও সন্ত্রাসীরা হত্যা করে বাক্স বন্দি করে রাখে আসিফকে আর মাটিতে পুতে রাখে দেবদত্তকে। ভেড়ামারায় সদ্য ঘটে যাওয়া ৭ম শ্রণীর ছাত্র আসিফকে অপহরণ করা হয়। ঘটনার ১৮ ঘন্টার মধ্যে রহস্য বের করে প্রকৃত দোষীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হন তিনি।

ভেড়ামারার আসিফ অপহরণের ঘটনা দ্রুত সময়ের মধ্যে রহস্য উদঘাটনে সত্যেই তিনি দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। ঠিক যেমনটি করেছিলেন মিরপুর উপজেলার শিশু দেবদত্তের অপহরণের ঘটনায়। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূর-ই-আলম সিদ্দিকী তার সততা ও দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে সুনামের সাথে দেশ ও জনগনের সেবায় নিজেকে এভাবে সর্বদা ব্রত রাখবেন বলে সকলেই মনে করেন।

ভেড়ামারা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূর-ই-আলম সিদ্দিকীর বলেন, গত রোববার দুপুরের দিকে স্কুল ছাত্র আসিবকে অপহরনের পর পঞ্চাশ হাজার টাকা মুক্তিপন দাবি করা হলে আসিফের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। পরে অভিযোগ দায়ের পর কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস.এম তানভীর আরাফাত পিপিএম এর নির্দেশনায় ।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মিশুক’র বাড়ীর একটি কাঠের বাক্সো থেকে স্কুল ছাত্র আসিবের লাশ উদ্ধার করে হয়। পরে এই হত্যাকারীদের আমরা চিহ্নিত করেছি তাদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালায়। অন্যটিম মাঠে কাজ করে বিভিন্ন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার মির্জাপুর থেকে পরানখালী গ্রামের মাঝামাঝি থেকে ঘাতক মিশুকে আটক করি । ঘাতক মিশুক’র দেওয়া তথ্য মতে তার মুক্তিপন দাবিতে ব্যবহৃত মোবাইল সিমটি তার শশুর বাড়ির পিছনে একটি নারিকেল গাছের গোড়ায় সিগারেটের প্যাকেট থেকে উদ্ধার করা হয়।

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা