,

‘শিগগিরই বড় একটি চমক রয়েছে’ : অভিনেত্রী সোহানা সাবা

বিনোদন ডেস্ক : বাংলা সময় টোয়েন্টিফোর ডটকম :
বিশেষ প্রতিনিধি:-আমরা গেল কয়েক বছর ধরে আমাদের টিভি অনুষ্ঠান দেখা থেকে ক্রমশ দর্শক হারাচ্ছি। সত্যিকার অর্থে গেল বছর আরো বেশি দর্শক হারিয়েছি। এই সময়ে আমিও দেশীয় টিভি চ্যানেল দেখি না। টিভি চ্যানেলগুলোতে কী দেখবো? সব চ্যানেলে প্রায় একই রকম অনুষ্ঠান প্রচার হচ্ছে। ২০১৯ সালের শুরুতে দেশীয় টিভি চ্যানেল ও দর্শকদের নিয়ে এভাবে মন্তব্য করলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী সোহানা সাবা। তিনি আরো বলেন, একটা সময় টেলিভিশনে স্পেশাল অনুষ্ঠান দেখার জন্য অপেক্ষা করতাম। এখন অনুষ্ঠানে নতুনত্ব দেখি না। সব চ্যানেল একই রকম লাইভ অনুষ্ঠান প্রচার করছে।

অন্য অনুষ্ঠানগুলোতেও দেখার মতো কিছু থাকে না। কেউ অনুষ্ঠানের কোয়ালিটি রক্ষা করছে না। দু-একটি ভালো অনুষ্ঠান যেগুলো প্রচার হচ্ছে সেগুলো গতানুগতিক অনুষ্ঠানের ভিড়ে খুঁজে পাওয়া যায় না। এই সমস্যার সমাধান কী? এই প্রশ্নের উত্তরে সাবা বলেন, কেন আমরা দর্শক হারাচ্ছি এটি সবাই জানি। টিভি কর্তৃপক্ষও জানে। কিন্তু জেনেও এর প্রতিকারের জন্য কেউ সেভাবে কাজ করছে না। আমি মনে করি দর্শকদের ফেরানোর জন্য সবার একসঙ্গে বসা প্রয়োজন। ২০১৮ সাল সাবার জন্য কেমন ছিল? তার ভাষ্য, গেল বছর একটি ভালো সিরিয়াল করেছি। আমার কাজগুলোর মধ্যে বেস্ট ছিল ‘মধ্যবর্তিনী’ সিরিয়ালটি। এটি দ্বীপ্ত টিভির সিরিয়াল। এই কাজটি করার সময় প্রায় চার মাস অন্যকোনো কাজ করিনি। ২০১৭ সালের শেষ ও গেল বছরের শুরুর দিকে এই অভিনেত্রী রেডিও আরজে হিসেবে নতুন পরিচয়ে আসেন। “সাবা’স কনফেশন বক্স” শিরোনামের একটি অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন তিনি। কয়েক পর্ব প্রচারের পর এটি বন্ধ হয়ে যায়। পরে সাবাকে আর আরজে হিসেবে দেখা যায়নি। এই প্রসঙ্গে তার ভাষ্য, সেই অনুষ্ঠানটির আইডিয়া আমার ছিল। রেডিও চ্যানেলটি যেভাবে প্রচার-প্রচারণা করবে বলে আমাকে বলেছিল, তারা সেভাবে করেনি। সব দায়িত্ব আমার ওপর এসে পড়ে। তাই অনুষ্ঠানটি নিয়ে বেশিদূর এগুনো সম্ভব হয়নি। এছাড়া আমি সচেতনভাবে উপস্থাপনার বিষয়টি এড়িয়ে চলি। কারণ, আমি নিজেকে একজন অভিনেত্রী হিসেবেই দেখতে চাই। তবে যারা আরজেগিরি করছেন কিংবা বিভিন্ন চ্যানেলে উপস্থাপনা করছেন আমি তাদের অভিবাদন জানাই। নতুন বছরে সাবার পরিকল্পনা কী? এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি সত্যি বলছি, পরিকল্পনা করে কিছু করতে পারি না। যখন যেটি করা প্রয়োজন সেটি করি। নতুন বছরে খুব শিগগির বড় একটি চমক রয়েছে। কিন্তু এই বিষয়ে এখনই কিছু বলতে চাই না। আমি চাই একসঙ্গে সবাই আমার সেই চমক সম্পর্কে জানুক। সাবা টিভি ও চলচ্চিত্র দুটোতেই অভিনয় করছেন। তবে এই সময়ে চলচ্চিত্রে বেশি ব্যস্ত বলে জানান তিনি। খুব শিগগির ‘মধুর ক্যান্টিন’ শিরোনামের একটি ছবির শুটিং শুরু করবেন। ছবিটি প্রসঙ্গে সাবা বলেন, ১৯৫৫ সাল থেকে শুরু করে ১৯৭১ সালের উল্লেখযোগ্য কিছু ঘটনা নিয়েই এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ হচ্ছে। সেই সময়ের একটি চরিত্রে আমাকে দেখা যাবে। এদিকে সাবা প্রথমবারের মতো ‘আব্বাস ওটু’ শিরোনামের একটি বাণিজ্যিক ছবিতেও অভিনয় করছেন। এটি নির্মাণ করছেন সাইফ চন্দন। এই ছবিতে সাবার বিপরীতে দেখা যাবে মডেল-অভিনেতা নিরবকে। অন্যদিকে মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে তার অভিনীত ‘এপার ওপার’ শিরোনামের একটি ছবি। এটি ওপার বাংলার প্রোডাকশন। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন দুই বাংলার দুই পরিবারের মধ্যে ঘটে যাওয়া কিছু সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মাণ হয়েছে এটি। যার প্রধান নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন সোহানা সাবা। তার বিপরীতে দেখা যাবে কলকাতার অভিনেতা সৌরভ চট্টোপাধ্যায়কে। ছবিটি পরিচালনা করেছেন হরনাথ চক্রবর্তী। এটি নিয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত এই অভিনেত্রী। কলকাতার বিভিন্ন ফেস্টিভ্যালে ছবিটি প্রদর্শন হবে বলে জানান তিনি। তারপর এ বছরের শেষের দিকে এটি মুক্তি পাবে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা