,

হেমন্তের হাল্কা শীতের আবহাওয়াতে গাছিরা ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন খেজুরের রস সংগ্রহে

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলা সময় ২৪ ডটকম :ইঞ্জিনিয়ার, আজাদ ;- কবি সুফিয়া কামাল বলেছেন- সবুজ পাতার খামের ভিতর হলুদ গাঁদা চিঠি লেখে, কোন পাথারের ওপার থেকে আনল ডেকে হেমন্তকে ৷ “আসি আসি করে শীত বুঝি আর আসতে খুব দেরি নেই ৷ চলছে হেমন্তকাল ৷ হেমন্তের হাল্কা শীতের আবহাওয়াতে কুষ্টিয়া সহ আশ-পাশের জেলা ও গ্রাম গঞ্জে চলছে খেজুর গাছ থেকে খেজুরের রস সংগ্রহের কাজ ৷ সকালের দূর্বাঘাস ও পত্রপল্লবে এসেছে শিশিরের ছোঁয়া ৷

রাতের শেষ ভাগে শিশিরের টাপুর-টুপুর মন মাতানো শব্দে পুলকিত করেছে প্রকৃতিকে ৷ এ যেন হেমন্তর আগমন বার্তা ৷ তাই শুরু হয়েছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যের প্রতীক খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহের কাজ ৷ খেজুর গাছের সাথে সংশ্লিষ্ট গাছিরা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে ৷ জানাযায় ৯০-৯৫’র দশকে কুষ্টিয়া, যশোর, খুলনার দক্ষিণাঞ্চলের প্রত্যন্ত অঞ্চল জুড়ে যতদূর চোখ যেত তা ছিল সবুজের মহা সমারোহ ৷ সোনালী ফসলে ভরে থাকত সারা মাঠ ৷ ক্ষেতের আইল দিয়ে দেখা মিলত হাজার হাজার খেজুর গাছের সারি ৷ কিন্তু কয়েক বছরের ব্যবধানে সবকিছুই যেন অতীত ৷

বর্তমানে বলা চলে অপরিকল্পিত নগরায়নের প্রতিযোগিতায় ইট, ভাটা ও শিল্প কল-কারখানায় বিরামহীন গতিতে গিলে খাচ্ছে কালের স্বাক্ষী খেজুর গাছ গুলোকে ৷ শীতের সকালে সোনালী রোদে বসে মিষ্টি খেজুরের রসের স্বাদ ও যেন তাই আজ ভুলতে বসেছে চিরচেনা কুষ্টিয়া সহ পাশের জেলার মানুষেরা ৷ তবুও যেখানে যে গাছগুলো এখনও নিরবে দাঁড়িয়ে আছে সেগুলোকে নিয়েই যেন গাছিদের শুরু হয়েছে অন্য রকম ব্যস্ততা ৷ সব মিলিয়ে শরৎ শেষে হেমন্তের প্রকৃতিই জাগান দিচ্ছে শীত এসেছে ৷ তাই গাছের সাথে সাথে গাছিরাও যেন তাদের পেশা পরিবর্তন করে চলে গেছে অন্য পেশায় ৷ কোন কোন এলাকায় যারা এখনও বাপ—দাদার পেশা আঁকড়ে পড়ে আছে গাছির পেশায় তাদেরও যেন যায় যায় অবস্থা ৷

এ প্রসঙ্গে ষ্টাফ রির্পোটার ইঞ্জিনিয়ার ,আজাদ এর সাথে কথা হয় নাটোর জেলার, লালপুর থানার প্রবীণ গাছি মন্টু, সাইদুল, সিহাবের ৷ কেমন যাচ্ছে তাদের দিন-কাল এমন প্রশ্ন করতেই যেন বড় একটা দীর্ঘশ্বাস, তারপর ছল-ছল চোখে বলেন গ্রামে এখন খেজুর গাছ নেই তাই তাদের আর ভালো থাকা ৷

কুষ্টিয়ার ঢাকাগ্রাম, মিনাপাড়া, ফুলবাড়ি, পোড়াদহ, মিরপুর, ঝিনাইদহ, আলমডাঙ্গা, খুলনা সহ সেদিকের মাঠে এখনও কিছু কিছু গাছ রয়েছে ৷ শীতের আগমনি বার্তাতে খেজুর গাছ নাকি গাছিদের আহব্বান করে রস সংগ্রহ করার জন্য ৷

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা