,

গোবিন্দগঞ্জে সড়ক থেকে তুলে নিয়ে এক গৃহবধুকে গনধর্ষনের চেষ্টা,থানায় ছিনতাই মামলা, আটক-২

সারা বাংলা ডেস্ক : বাংলা সময় টোয়েন্টিফোর ডটকম; উজ্জল হক প্রধান,গাইবান্ধা প্রতিনিধি :- গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের শাখাহার ইউনিয়নে সড়ক থেকে তুলে নিয়ে এক গৃহবধুকে ধর্ষনের চেষ্টায় হাতে নাতে ২লম্পটকে জনতা আটক করে পুলিশে সোপর্দ করার ঘটনায় থানায় ছিনতাই মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানায়, উপজেলার শাখাহার ইউনিয়নের দশলাল পশ্চিম পাড়া গ্রামের জনৈক এক ব্যক্তির স্ত্রী গৃহবধু(২৫)১২ এপ্রিল সন্ধা সাড়ে ৭টার দিকে গোবিন্দগঞ্জ শহরের বে-সরকারী একটি এনজিও থেকে টেনিং শেষে সি-এনজি যোগে বাড়ীর উদ্যেশ্যে রওনা হয়ে শহরগছি চৌমাথা নেমে পড়ে।

শহরগছি চৌমাথায় নেমে সে তার বড় বোনকে মোবাইল ফোনে জানায় আমি শহরগছি পৌঁছেছি। তার বোনও তাকে এগিয়ে নেয়ার বাবার বাড়ী দামগাড়ি থেকে পায়ে হেটে রওনা দেয় ও ওই গৃহবধু পায়ে হেটে তার বাবার উদ্দেশ্যে রওনা দেয় পথে মধ্যে টায়ারের তেল তৈরী কারখানার চাতালের কাছে পৌঁছিলে।৫জন যুবক মুখ বেঁধে সড়কের পাশে একটি আড়ালে নিয়ে ধর্ষনের জন্য ধস্তাধস্তি শুরু করে। এসময় তার বড় বোন খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে ওই স্থানে এসে বোনের ওই অবস্থা দেখে চিৎকার শুরু করলে এলাকার লোকজন ও পথচারীরা এগিয়ে এলে ৫ লম্পট পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে এদের মধ্যে আরজি পিয়ারাপুর ফেসকা গ্রামের আব্দুল মজিদ মন্ডলের ছেলে লিটন মিয়া(২৭)ও রওগাঁও গ্রামের হাফেজ আলীর ছেলে রফিস উদ্দিন(৩০) কে আটক করে।এদের মধ্যে ৩ লম্পট পালিয়ে যায়।পরে রাত ৯টার আটককৃতদের
শহরগছি চৌমাথায় নিয়ে গেলে পুলিশও ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে সেখানে শত-শত জনতার উপস্থিতিতে ধর্ষনের চেষ্টার ঘটনায় ভিকটিম ও এলাকাবাসীর কাছে ঘটনার বর্ননা শুনেন পুলিশ। এঘটনার খবর চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন গ্রামের শত-শত মানুষ শহরগাছি জড়ো হয়।

বৈরাগী হাট তদন্ত কেন্দ্রের একদল পুলিশ রাত ১০ টার দিকে ভিকটিম ওই গৃহবধু ও ২লম্পটকে বৈরাগীহাট তদন্ত কেন্দ্রে নিয়ে যায় পুলিশ সেখানেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।পরে রাত ১১টার দিকে পুলিশি হেফাজতে গোবিন্দগঞ্জ থানায় এনে ফের জিজ্ঞাসাবাদ করে এজাহার করে থানায় ছিনতাই মামলা নেয়া হয়। এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মেহেদী হাসান জানান,এ বিষয়ে ছিনতাই মামলা দায়ের হয়েছে।তিনি আরো জানান,ভিকটিমের পরিবার যে এজাহার দিয়েছে সেটাই মামলা হয়েছে।

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা

ফেসবুকে আমরা