,

কুষ্টিয়ার ইতিহাসে শহীদ শহিদুল ইসলাম

ড. এমদাদ হাসনায়েন

শহিদুল ইসলাম ১৯৪৯ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর কুষ্টিয়া জেলার সদর থানার উজানগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের অন্তর্গত দুর্বাচারার সংলগ্ন শ্যামপুর নামক গ্রামে নানার বাড়ীতে জন্মগ্রহণ করেন। মাতা রাবেয়া খাতুন এর অসম্ভব আদরের সন্তান শহিদুল ইসলাম শৈশব থেকেই ছিলেন খুব মেধাবী। তার পড়ালেখা জীবনে প্রথমে দুর্বাচারা প্রাথমিক বিদ্যালয়, পরে দুর্বাচারা জুনিয়র হাইস্কুল এবং কুষ্টিয়াতে লেখাপড়া করেন। অতি সাফল্যের সহিত এসএসসি ও এইচএসসি পাশ করার পর ১৯৬৭ সালে তদানিন্তন রাজশাহী প্রকৌশল মহাবিদ্যালয়ে তড়িৎ কৌশলে ভর্তি হন। তিনি যখন শেষ বর্ষের ছাত্র তখনই মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। সে সময় তিনি দেশ মাতৃকার টানে মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান পিতা ছলিম উদ্দিন বিশ্বাসের আদেশে অন্য দুই ভাই সাবুবিন ইসলাম (সাবু) এবং বাবু সহ ৪০/৫০ জন মিলে ভারতে চলে যান। ট্রেনিং শেষে দেশে ফিরে এসে বেশ কয়েকটি সম্মুখ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে সাফল্য অর্জন করেন।

ভাগ্যের নির্মম পরিহাস স্বাধীনতার মাত্র ১০ দিন আগে ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর এই মহান মুক্তিযোদ্ধা কুষ্টিয়া কুষ্টিয়া সদর থানার উজান গ্রাম ইউপি পরিষদের অন্তর্গত করিমপুর নামক গ্রামে পাকহানাদার ও তাদের দোসরদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধে শাহাদৎ বরণ করেন। এই গর্বিত শহীদ শহিদুল ইসলাম দুর্বাচারা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্মুখে অন্য সব শহীদদের সাথে চির নিদ্রায় শায়িত আছেন। প্রতিবছর এখানে জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন জায়গা থেকে হাজার হাজার জনতা স্বাধীনতা দিবসে মহান শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে সববেত হন। দুর্বার, দু:সাহসী এই মুক্তিযোদ্ধার মহান ত্যাগের স্মরণে বি.আই.টি. রাজশাহীতে (বর্তমানে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়) একটি ছাত্র হলের নাম করণ তাঁর নাম অনুসারে ‘শহীদ শহিদুল ইসলাম’ করা হয়েছে।…
—————————
বই প্রাপ্তি স্থান:
কোবাডাক হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ সেন্টার, লাশকাঁটার মোড়, কুষ্টিয়া
বই মেলা, এন এস রোড, কুষ্টিয়া
বই সমাবেশ, স্টেশন রোড, কুষ্টিয়া
বিদ্যাকোষ লাইব্রেরী, কোর্ট স্টেশনের পূর্বে, কুষ্টিয়া
বই নীড়, ইসলামিয়া কলেজ রোড, কুষ্টিয়া
চরকা, লালন শাহ্ মার্কেট, ছেঁউড়িয়া, কুষ্টিয়া

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা

ফেসবুকে আমরা