,

গান গাওয়া ও সুর করেছি একসঙ্গে- পড়শী

গান গাওয়া ও সুর করেছি একসঙ্গে- পড়শী

সারা বাংলা ডেস্ক, বাংলা সময় টুয়েন্টিফোর ডটকম, ঢাকা অফিস : সম্প্রতি হাবিব ওয়াহিদের সুর ও সঙ্গীতায়োজনে তার গাওয়া ‘আবাহন’ গানের দ্বিতীয় ভার্সন প্রকাশিত হয়েছে। এর পাশাপাশি নতুন আরও পাঁচটি গানের আয়োজন নিয়ে ব্যস্ত আছেন তিনি। এ সময়ের ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা হয় তার সঙ্গে-

‘আবাহন’ গানের আরেকটি ভার্সন তৈরির পরিকল্পনা কি আগে থেকেই ছিল?

আমি তো জানতামই না, ‘আবাহন’ গানের আরেকটি ভার্সন তৈরি করা হবে। সুরকার হাবিব ওয়াহিদও এ বিষয়ে আগে থেকে কিছু বলেননি। তিনি নিজেই কখন নতুন করে গানের সঙ্গীতায়োজন করেছেন, সেটাও আমাকে বলেননি। গান প্রকাশের আগেরদিন রাত আমাকে বলেছিলেন, ‘আবাহন’-এর আরেকটি ভার্সন তৈরি করেছি, কাল প্রকাশ করব। এ কথা শুনে যতটা খুশি হয়েছি, ঠিক ততটাই অবাক হয়েছি। কারণ এই গান প্রকাশ করা হয়েছে মাত্র কিছুদিন আগে। এত অল্প সময়ের মধ্যে এর আরেকটি ভার্সন তৈরি হবে, তা সত্যিই ভাবিনি। যেসব গান তুমুল জনপ্রিয়তা পায়, সেসব গানের দ্বিতীয় ভার্সন তৈরি করা হয়। ‘আবাহন’ এত অল্প সময়ের শ্রোতাদের মধ্যে সাড়া ফেলবে এবং এর আরেকটি ভার্সন তৈরি হবে- তা কল্পনাও করিনি।

গান রেকর্ড করার পর কি কখনও মনে হয়নি, এটি শ্রোতাদের মধ্যে সাড়া ফেলতে পারে?

হাবিব ওয়াহিদের কাজের ধরন অন্য মিউজিশিয়ানদের চেয়ে আলাদা। তার কম্পোজ করা গান সহজেই শ্রোতার হৃদয় স্পর্শ করে। ‘আবাহন’ গানটিও রেকর্ড করার পর মনে হয়েছিল, এই গান অনেকের ভালো লাগবে। কিন্তু আজকাল গানের ভিডিওতে যেভাবে আলাদা গল্প জুড়ে দেওয়া হয়, এটি সেভাবে তৈরি করা হয়নি। মিউজিক ভিডিও তৈরি হয়েছে স্টুডিও ভার্সনে। তারপরও এত অল্প সময়ে এই গান নিয়ে এতটা সাড়া পাব সত্যিই ভাবিনি।

একের পর এক স্টেজ শো থাকায় নতুন গানের কাজ করতে পারছেন না বলেছিলেন। এখন কি স্টেজের ব্যস্ততা কমেছে?

স্টেজ শো কমিয়ে দিয়েছি। সামনে রোজা শুরু হবে- তাই সে সময়টা স্টেজ শো বাদ দিয়ে নতুন গানের কাজ করব। অবশ্য এর মধ্যে পাঁচটি গানের কাজ শুরু করে দিয়েছি। অনেকদিন আগে ইমরানের সঙ্গে ‘আবদার’ শিরোনামের একটি গানের কাজ শুরু করেছিলাম, এবার সেটা শেষ করব। এর বাইরে জুয়েল মোর্শেদ, নাভেদ পারভেজের সুর-সঙ্গীতে বেশ কিছু গান তৈরি করার পরিকল্পনা আছে। গান গাওয়ার পাশাপাশি সুরও করছি। এর আগেও আমি ভাই স্বাক্ষরের সঙ্গে দু’একটি গানের সুর করার চেষ্টা করেছি, কিন্তু এবার একাই একটি গানের সুর করে ফেলেছি। ভাবছি কলকাতার কোনো শিল্পীর সঙ্গে এই গান দ্বৈত কণ্ঠে রেকর্ড করা যায় কি-না।

এখন থেকে কি পড়শীকে কণ্ঠশিল্পীর পাশাপাশি সুরকারও বলা যাবে?

একেবারেই না। আমার পরিচয় কণ্ঠশিল্পী, এর বাইরে অন্য কোনো পরিচয়ে পরিচিত হতে চাই না। ভালো লাগা থেকে অনেকে অনেক কিছু করে। আর আমি যেহেতু গানের মানুষ, দু’একটি গানের সুর করার চেষ্টা তো করতেই পারি। তাই বলে তো নিজেকে সুরকার দাবি করতে পারি না। তা ছাড়া পেশাদার সুরকার বা সঙ্গীত পরিচালকদের সঙ্গে আমার তুলনা করাও উচিত হবে না। একটি গানের সুর করেছি শুধু ভালো লাগা থেকে।

আপনার ব্যান্ড বর্ণমালার একটি অ্যালবাম প্রকাশের কথা বলেছিলেন, কাজ কতদূর এগোল?

অ্যালবাম মনে হয় না করতে পারব। তবে ব্যান্ডের সিঙ্গেল প্রকাশ করতে পারি, কিন্তু তার জন্য আরও কিছুদিন সময় নিতে হবে। নানা ব্যস্ততায় বর্ণমালার কোনো আয়োজনই এখনও শুরু করতে পারিনি। একক গানগুলো প্রকাশের পর এর আয়োজন নিয়ে নতুন করে ভাবব।

অভিনেত্রী পড়শীকে আবার কবে ছোট বা বড় পর্দায় দেখা যাবে?

মনে হয় না অভিনেত্রী পড়শীর আর দেখা পাবেন। তবে নাটক, সিনেমায় না হলেও মিউজিক ভিডিওতে আমার দেখা পাবেন। অভিনয় না জেনেও এই কাজটি নিয়মিত করতে হচ্ছে। গানের গল্প তুলে ধরতে নানা চরিত্রে ভিডিওতে অভিনয় করছি- এটাই বা কম কী।

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা

ফেসবুকে আমরা