,

থানায় জিডি করতে টাকা লাগেনা : ওসি সুকুমার বিশ্বাস

শিমুল রেজা চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রতিনিধিঃ পুলিশের ভাবমুর্তি ফিরিয়ে আনতে দামুডহুদা থানা পুলিশ বিভিন্ন রকমের আইনি সেবা চালু করেছে ওসি সুকুমার বিশ্বাস ।তারমধ্যে অন্যতম আইনি সেবা হলো থানায় জিডি করতে গেলে টাকা লাগেনা।

দামুডহুদা থানার গেট থেকে সোজা থানা ভবনের প্রধান ফটোকের কাছে গেলে দেখা যাবে দেওয়ালে একটি সাইনবোর্ড টানানো।তাতে লেখা আছে থানায় জিডি/মামলা করতে কোন টাকা লাগেনা। একটু সামনে গেলেই ডিউটি অফিসারের কক্ষ। সেখানে গেলে দেখা যাবে ডিউটি অফিসারের মাথার উপরে দেওয়ালে টানানো আছে আমি ও আমার প্রতিষ্ঠান দূর্ণীতি মুক্ত এখন জিডি করতে কোন টাকা লাগেনা।

বিষয়টি হাস্যকর হলেও বাস্তবে তা সম্ভব করেছেন চুয়াডাঙ্গা জেলার পুলিশ সুপার জনাব মাহবুবুর রহমান( বিপিএম) এঁর নির্দেশনায় দামুডহুদা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি সুকুমার বিশ্বাস এ বিষয়ে ভুক্ত ভোগী ভ্যান চালক রাজজুন আলী প্রতিবেদক কে জানান,তার ব্যাংক চেক বই হারিয়ে যায় কয়েক দিন আগে।অনেক খোজাখুজি করেও তিনি সেটি পাননি।

পরে স্থানীয় এলাকার লোকজন ভ্যান চালক রাজজুন আলীকে দামুডহুদা থানায় থেকে একটি জিডি করে বলেন। ভ্যান চালক রাজজুন আলী থানায় যেতে হবে শুনে বিষ্মিত হলেন, কারন তার ধারনা ছিলো থানায় জিডি করতে গেলে ৫০০-৭০০ টাকা লাগতে পারে।পরে অনেক কষ্টকরে ভ্যান চালক রাজজু ৫০০ টাকা জোগাড় করে দামুডহুদা থানায় যান (জিডি)সাধারন ডায়েরী করার উদ্যেশ্যে। থানায় গিয়ে দেখতে পেলেন থানার ডিউটি অফিসারের দায়িত্বে আছেন এএসআই মাসুদ রানা এসময় ভ্যান চালক তার সমস্যার বিষয় টি কর্তব্যরত ডিউটি অফিসার কে জানালে ডিউটি অফিসার এএসআই মাসুদ রানা প্রয়োজনে তাকে থানার কর্মকর্তা দিয়ে জিডি লিখে আনতে বলেন। ডিউটি অফিসারের কথা মোতাবেক ভ্যানচালক রাজজুন আলী একটি জিডি লিখে এনে থানার ডিউটি অফিসারের টেবিলের সামনে।

এসময় ডিউটি অফিসার জিডির কাগজটি পড়ে নথিভুক্ত করেন।এক্ষেত্রে তিনি একটি ডায়েরীতে জিডির নম্বরসহ বিভিন্ন তথ্য লিপিবদ্ধ করেন। জিডির দুটি কপি করে একটি থানায় সংরক্ষণ করা হয় এবং অন্যটিতে জিডির নম্বর লিখে প্রয়োজনীয় সাক্ষর ও সীল মেরে দেন এমসয় ভ্যান চালক রাজজুন আলী খুশি হয়ে পকেট থেকে ৫০০ টাকা নিয়ে সহকারী সাব-ইন্সপেক্টর মাসুদ রানাকে চা খাওয়ারজন্য দিতে উদ্যোত্ত হন।টাকা দেওয়ার অফার ও বিষয়টি দেখা মাত্রই সহকারী সাব-ইন্সপেক্টর মাসুদ রানা ভ্যান চালক কে বলেন, টাকা আগে পকেটে রাখেন। জেলার এসপি স্যার ও ওসি সুকুমার বিশ্বাস স্যারের কড়া নির্দেশ জিডি বা মামলা করতে কোন টাকা নেওয়া যাবেনা।টাকা নিলে আমার চাকুরী শেষ,ঐ দেখেন সিসি টিভি ক্যামেরা।ক্যামেরায় স্যাররা সব দেখতে পান।

তিনি আরো বলেন ঐ যে আমার মাথার উপরের দেওয়ালে তাকিয়ে দেখেন দেওয়ালের সাইনবোর্ড। তাতে লেখা আছে “আমি ও আমার প্রতিষ্ঠান দূর্ণীতি মুক্ত তাই এখানে জিডি করতে কোন খরচ লাগেনা। ভ্যান চালক এসময় আবেগ আপ্লুত হয়ে সহকারী সাব-ইন্সপেক্টর মাসুদ রানাকে বলেন স্যার,সেবাই যে পুলিশের ধর্ম সেটা আজ দামুডহুদা থানা পুলিশের কাছ থেকে প্রমান পেলাম।আল্লাহ পাঁক আপনাদের মঙ্গল করুন।

এ জাতীয় আরো সংবাদ


ফেসবুকে আমরা

ফেসবুকে আমরা